সৌদি আরবের মহিলাদের স্বাধীনভাবে গাড়ী চালানো অর্থনীতিতে পরিবর্তন নিয়ে আনবে

তথ্য ছড়িয়ে দিন

সময়ঃ ২১ জুন ২০১৮,
এনাম গাজী আল আসওয়াদ সৌদি আরবের প্রথম মহিলা ড্রাইভার, কারিম অ্যাপের চালক হয়ে উঠতে আগ্রহী।
আল-আসওয়াদ বলেন,  এই রোববার কার্যকর হওয়া নারীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স অনুমোদন করার রাজ্যের যে সিদ্ধান্ত, তা তাদের স্বপ্নের কর্মজীবন চালিয়ে যাওয়ার জন্য আরো নারীদের আরও উৎসাহ দিবে।
সৌদি আরব এর জেদ্দায়, জুন ২১, ২০১৮ তারিখে মহিলাদের জন্য একটি বহিরঙ্গন ড্রাইভিং শিক্ষা অনুষ্ঠানের আয়োজনে সাহায্য করার জন্য ঐতিহ্যগত আবওয়া পরিধান করে হাঁটতে হাঁটতে তরুণ মহিলারা এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে।
সৌদি আরবের নারীরা রোববার প্রথমবারের মতো আইনীভাবে ড্রাইভিং করতে পারবে – দেশের অর্ধেকের চেয়ে বেশি মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে এটি একটি ঐতিহাসিক পদক্ষেপ বলে আশা করা হচ্ছে।
এনাম গাজী আল আসওয়াদের মতে, এই সিদ্ধান্তননারী উন্নয়নের গতিবিধি বৃদ্ধি করে ও  নারীর স্বাধীনতা দেয়। এবং যারা কারিম অ্যাপের দূরের চালক যেটা রাজ্যের উবার এর সহযোগী একটি প্রতিষ্ঠান এর চালক হতে চায় তাদের জন্য এই সিদ্ধান্তটি সত্যিই চমৎকার।
সি এন বি সি এর হ্যাডলি গ্যাম্বেলকে তিনি বলেন, এর ফলস্বরূপ, আরো নারী এখন তাদের স্বপ্নের কর্মজীবনকে জোরদার করতে অনুপ্রাণিত হবে।
“এটি কেোমো সমতা নয়, এটি আমাদের দেশকে একসাথে গড়ে তুলছে।” তিনি আরও বলেন, “এটি সম্প্রদায়ের বিষয়,  নারী ও পুরুষ সমান এখন সৌদি আরবে, এখন আর আগের মতো নেই।”
আল-আসওয়াদ বলেন, তিনি বিশ্বাস করেন যে তার দেশের সামাজিক কাঠামো এক দশকের মধ্যে বিবর্তিত হবে, কারণ যুবকদের বর্তমান প্রজন্মের নতুন নতুন স্বাধীনতা বৃদ্ধি পেয়েছে,  “সবকিছু বদলে যাচ্ছে।”
১৯৫৭ সাল থেকে নারীদের ড্রাইভিং থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে, এমনকি ইসলামের জন্মস্থানের দেশ হিসেবে নারীদের  অন্যান্য বিষয়গুলোও অগ্রগতি অর্জন করেছে।
কিং সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল সউদ কর্তৃক গত বছরের রাজকীয় ডিক্রি, তেল-সমৃদ্ধ জাতির আধুনিকীকরণের জন্য রাজকীয় পরিবারের ব্লুগ্রিন্টের অংশ। অন্যান্য উদ্যোগের মধ্যে দুর্নীতি এবং আরও খোলা আর্থিক বাজারের উপর কঠোর ব্যাবস্থা গ্রহণ ও রয়েছে।

এই নিবন্ধটি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল সংবাদমাধ্যম সি এন বিসি 

আপনি এই ওয়েবসাইটের আরো আকর্ষণীয় খবর বা ভিডিও দেখতে চাইলে ক্লিক করুন এখানে সি এন বিসি হোম


তথ্য ছড়িয়ে দিন